বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন রাজনৈতিক নেতা শামীম ওসমান। তিনি জাতীয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য। পারিবারিক ভাবেই তিনি রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগের সাথে যুক্ত। তার বাবা, দাদা রাজনৈতিক দলের সঙ্গে জড়িত ছিল। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য হিসাবে শামীম ওসমানের দাদা এম ওসমান আলীর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে।
নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হারিয়ে ৫০ বছর পিছিয়ে পড়েছিল বাংলাদেশ। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি না থাকেন তাহলে দেশের পরিস্থিতি কি হবে তা আল্লাহ ছাড়া কেউ জানে না।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে। দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করতে নানা ধরনের অপচেষ্টা করা হচ্ছে। এ অবস্থায় আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি মারা যান তাহলে বাংলাদেশ হবে আফগানিস্তান। তাই শেখ হাসিনার জন্য সবাই দোয়া করবেন, আল্লাহ যেন তার আয়ু বাড়িয়ে দেন। শেখ হাসিনাকে আওয়ামী লীগের প্রয়োজন নেই, শেখ হাসিনাকে ১৬ কোটি মানুষের প্রয়োজন। ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশকে উন্নয়নের সর্বোচ্চ শিখরে নিয়ে গেছেন শেখ হাসিনা।

বুধবার (২৭ নভেম্বর) ফতুল্লার কাশিপুরের দারুস সুন্নাহ কামিল মাদরাসার একাডেমিক ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

শামীম ওসমান বলেন, আমি রাজনীতি করতে এসেছি, এমপিগিরি করতে আসিনি। যখন আমাকে বলা হয় এমপি সাহেব তখন আমার ভালো লাগে না। আমি মানুষের সেবা করতে এসেছি। তিন পুরুষ ধরে রাজনীতি করছি। অনেক সাংবাদিক আমাকে প্রশ্ন করেন, আপনি এমপি হওয়ার পর বলেছেন আর রাজনীতি করবেন না। আমি একটি জিনিস বিশ্বাস করি আমাদের সবাইকে মরতে হবে। কেউ আজীবন বেঁচে থাকে না। আমি কাজ করছি, কাজ করে যাব। আমি কাজ করব হাততালি পাওয়ার জন্য নয়। আমি ভালো কাজ করে যেতে চাই। যাতে মৃত্যুর পর আমার জন্য আফসোস করে মানুষ।

তিনি বলেন, কয়েকদিন আগে পত্রিকায় সংবাদ হয়েছে চাষাঢ়া থেকে পাগলা সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। সংবাদ প্রকাশের পর আমার কাজ করাটা সহজ হয়েছে। সংবাদ দেখে মন্ত্রী সচিবকে বললেন দ্রুত ব্যবস্থা নেন। সাংবাদিকদের সংবাদে চাষাঢ়া থেকে পাগলা সড়কের সমস্যা দূর হয়ে গেলো। আমার জন্য কাজটা করতে সহজ হয়ে গেল। কারণ কাজ আদায় করতে আমার একটা সুযোগ প্রয়োজন। মুক্তারপুরে আধুনিক ফ্লাইওভার করা হবে। কাজেই সড়ক ব্যবস্থা উন্নত হবে।

দারুস সুন্নাহ কামিল মাদরাসার গভর্নিং বডির সভাপতি এম সাইফউল্লাহ বাদলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- গভর্নিং বডির সিনিয়র সহসভাপতি আশরাফুল আলম, গভর্নিং বডির সদস্য গোলাম হায়দার, ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোমেন শিকদার, প্রচার সম্পাদক জাহেদুল হক খোকন, জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, কাশিপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি (ভারপ্রাপ্ত) আইয়ুব আলী ও সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) এমএ সাত্তার প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে ২০১৮ হালে অনুষ্ঠিত হয়েছিল একাদশ সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ বিপুল ভোটে জয় লাভ করে। এবং এই জয় লাভের মধ্য দিয়ে আরেক ক্ষমতাসীন দল বিএনপি এর পরাজয় হয়। বর্তমান সরকারের দ্বায়িত্ব পালন করছে আওয়ামীলীগ দল।