বর্তমান সময়ের ক্ষমাতাসীন রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ। এই দলের সহযোগী অঙ্গ সংগঠন যুবলীগ। এই যুবলীগ সম্প্রতি সময়ে সারা দেশ ব্যাপী সমালোচিত। দলের নাম বিকৃিতি করে নানা অসামাজিক কর্মকান্ডে জড়িত যুবলীগ দলের নেতাকর্মীরা। এরই ধারাবাহিকতায় যুবলীগকে নতুন ভাবে সংগঠিত করা হয়েছে।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সংগঠনের নাম ভাঙিয়ে ও নেতৃত্বের দাপট দেখিয়ে চাঁদাবাজি চলবে না। অফিসে অফিসে গিয়ে চাঁদাবাজি করবেন, এ রকম নেতা চাই না।

ওবায়দুল কাদের শুক্রবার রাজধানীর ফার্মগেটের খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে মৎস্যজীবী লীগের জাতীয় সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। কাদের বলেন, যাদের নেতৃত্বের দায়িত্ব দেওয়া হবে তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও অনিয়মের কোনো অভিযোগ পাওয়া গেলে এবং তা প্রমাণ হলে সঙ্গে সঙ্গে তাদের বাদ দেওয়া হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি আন্দোলনের নামে সন্ত্রাস করলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, বিএনপির আন্দোলনের নামে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চাইলে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করা হবে। কাদের বলেন, বিএনপির কাছে আইনের শাসন, বিচার ব্যবস্থা, আদালত নিরাপদ নয়। তারা আদালত, আইনের শাসন ও বিচার মানে না। তিনি বলেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আদালতের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে তারা আদালত প্রাঙ্গণে ভাঙচুর ও পুলিশের ওপর হামলা করেছে এবং ইটপাটকেল ছুড়েছে। এই অবস্থায় বিএনপি যদি কখনো ক্ষমতায় আসে তাহলে পরিণতি কী হবে সেটা সহজেই বুঝতে পারা যায়।

নেতা কর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন, চক্রান্ত এখনো চলমান আছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রিয় সরকারকে হটানোর ষড়যন্ত্র চলছে। আপনাদের সতর্ক থাকতে হবে। মৎস্যজীবী লীগের আহ্বায়ক নারায়ণ চন্দ্র চন্দ্রের সভাপতিত্বে এ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এবং ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী উপস্থিত ছিলেন। পরে মৎস্যজীবী লীগের সম্মেলনে নবনির্বাচিতদের নাম ঘোষণা করেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি হিসেবে মো. সাইফুর রহমান, কার্যকরী সভাপতি হিসেবে সাইদুল আলম মানিক এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে শেখ আজগর লস্করের নাম ঘোষণা করেন তিনি। এ ছাড়া সম্মেলনে মৎস্যজীবী লীগ সহসভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন আবুল বাশার, আব্দুল গফুর, মোহাম্মদ আলম, বাবুল মিয়া, মীর আসাদুজ্জামান, শাহে আলম মিয়া ও নাসরিন সুলতানা। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল আলিম, টিপু সুলতান ও রফিকুল ইসলাম রফিক। বেলা ১১টায় জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা এবং দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করেন ওবায়দুল কাদের।

প্রসঙ্গত, বর্তমান সময়ে জাতীয়বাদী দল বিএনপির দলীয় নেতাকর্মীরা নানা অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে কারাগারে বন্দী। এবং বিএনপি দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও দূর্নীতির দ্বায়ে সাজা খাটচ্ছেন। জাতীয়বাদী দল বিএনপির রাজনৈতিক অবস্থান সংকটপন্ন। দলকে সঠিক ও শক্তিশালী করার লক্ষ্য এবং বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য দলীয় নেতাকর্মীরা বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছে।